গৌরনদীতে আওয়ামীলীগ নেতা পিকলু গুহুর নেতৃত্বে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার ২


আহছান উল্লাহ ও বিডি কামাল,গৌরনদী।
বরিশালের গৌরনদী উপজেলা আওয়ামীলীগ এর বিতর্কিত যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও মাহিলাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈকত গুহু পিকলুর নেতৃত্বে, এক শিক্ষার্থী ও তার মাকে পিটিয়ে গুরত্বর আহত করেছে। এ সময় তাদের ব্যবহৃত মটরসাইকেলটি ইউনয়ন পরিষদ কার্য্যালয়ের সামনে নিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। শিক্ষার্থী নিলয় হাওলাদার ওরফে সিহাব তার মা রুমা বেগমকে নিয়ে,বৃহস্পতিবার মাহিলাড়া কলেজে একাদশ শ্রেনীতে ভর্তির বিষয়ে গিয়েছিলেন। কলেজে ঢোকার পথেই কোন কারন ছাড়াই মা ছেলে চেয়ারম্যানের হামলার সিকার হন। এ ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এ ঘটনায় পিকলু চেয়ারম্যানকে প্রধান করে মোট ৮ জনকে আসামি করা হয়েছে, শিক্ষার্থীর মা রুমা বেগম বাদি হয়ে গতকাল শুক্রবার গৌরনদী মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ হামলার সাথে জড়িত পলাশ হাওলাদার (২৬) ও রুবেল ফকির (২২) নামে দুইজনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করেছেন।

মামলা ও আহতদের সুত্রে জানাগেছে, গৌরনদী উপজেলার পিঙ্গলাকাঠী গ্রামের বাসিন্ধা, রুমা বেগম তার ছেলে সিহাবকে নিয়ে মাহিলাড়া কলেজে যান। ছেলে সিহাবকে ওই কলেজের একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি করার তথ্য জানার জন্য। মা ছেলে মটর সাইকেল যোগে কলেজ ক্যাম্পাসের ইটের রাস্তায় পৌঁছামাত্র,পিকলু চেয়ারম্যান তার ৭/৮জন সহযোগি নিয়ে সিহাব ও তার মার মটর সাইকেলের গতিরোধ করে জিজ্ঞাস করে জীয়া তোর কি হয় বলতেই তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে গুরতর জখম করে। (যুবলীগ নেতা জীয়া সিহাবের ফুপাত ভাই)। এ সময় শিক্ষার্থীর মটর সাইকেলটি ইউনিয়ন পরিষদের সামনে নিয়ে পুঁড়িয়ে দেয়। আহত মা ছেলের ডাকচিতকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে আসলে মা ছেলেকে জীবননাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
স্থানীয় আওয়ামীলীগের একটি নির্ভযোগ্য সুত্র জানায়, যে কোন অদৃশ্য শক্তির কারনে পিকলু গুহুর বিভিন্ন সন্ত্রাসি কর্মকান্ড ও বিতর্কিত কাজের কোন বিচার বা দলীয় ব্যাবস্থা নেয়া হয় না। লক্ষ লক্ষ টাকার সরকারি গাছ কেটে বিক্রি করে দিয়েছে প্রমানও হয়েছে। আবার সরকারিভাবে তদন্ত হয়েও প্রমানীত হল, অথচ তার কিছুই হল না। বরং সে বছরই সে বনায়নে পুরষ্কার পেয়েছেন। তবে শিক্ষার্থী ও তার মাকে অন্যায় ভাবে মারধর করে আহত করার বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামীলীগের মাঝেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া ও ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। এ ঘটনা অনেক দুর গরাবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সুত্রটি। এ ছাড়া দলের একাধীক সিনিয়র নেতাদের শারীরিকভাবে বিভিন্ন সময় লাঞ্চিত করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সুত্রটির দাবী দলীয় শৃঙ্কলায় তাকে ফিরাতে না পারলে তার এ সব অপকমর্, প্রভাব ফেলবে আগামী সংসদ নির্বাচনে।
আওয়ামীলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান পিকলু গুহু জানান,কলেজে নববর্ষের অনুষ্ঠান চলছিল তারা (আহত সিহাব) মেয়েদের উত্যক্ত করছিল এর প্রতিবাদ করলে তারা শিক্ষার্থীদের উপর চড়াও হলে এ ঘটনা ঘটে।
গৌরনদী মডেল থানার ওসি মো.আফজাল হোসেন গনমাধ্যমকে জানান, এ বিষয়ে রুমা বেগম একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটির তদন্তভার এস আই গাফফার হোসেনকে দেয়া হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত দুইজনকে প্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। অন্য আসামিদের ধরার জন্য অভিযান চলছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। তদন্ত সাপেক্ষ পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।