গৌরনদীর সেই কওমী মাদ্রাসা বন্ধকরে পালাতে গিয়ে আটক ৫

Share This
Tags

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি
মাত্র একশ টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে শিশুছাত্রীর ওপর তিন শিক্ষকের অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনায় বহুল আলোচিত বরিশালের গৌরনদী উপজেলা সদরের সেই খাদিজাতুল কোবরা (রাঃ) মহিলা কওমী মাদ্রাসাটি বন্ধকরে পালাতে গিয়ে গতকাল রোববার দুপুরে থানা পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন মাদ্রাসাটির প্রতিষ্ঠাতার মা ও তাদের এক নিকট আতিœয়সহ মাদ্রাসার তিন কর্মচারী। আটককৃতদেরকে থানায় রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
নির্যাতিতা ওই শিশু ছাত্রীর মা গৌরনদী উপজেলার পশ্চিম শাওড়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী মোঃ কামাল হোসেন বেপারীর স্ত্রী রেনু বেগম জানান, মাদ্রাসাটির প্রতিষ্ঠাতা জাহিদুল ইসলামের মা ও মাদ্রাসার বড় খালামনি (সুপার) খাদিজা বেগমের শাশুড়ি জাহিদা বেগম গতকাল রোববার দুপুর ২টার দিকে মাঈনুল ইসলাম নামের তার এক নিকট আতœীয় যুবককে সাথে নিয়ে মাদ্রাসায় ঢুকে হটাৎ সকল আবাসিক ছাত্রীদেরকে ছুটি দিয়ে দেন। এরপর তিনি মাদ্রাসাটি তালাবন্ধ করে দিয়ে মাদ্রাসার দারোয়ান ইমরান হোসেন এবং আয়া রাজিয়া বেগম ও শিউলী বেগমকে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিলেন। ঘটনা জানতে পেরে তিনি (শিশু ছাত্রীর মা) দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে থানা পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে থানার এসআই, শারমীন সুলতানা শিখা’র নেতৃত্বে একদল পুলিশ দ্রত ঘটনা স্থলে পৌছে তাদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
গৌরনদী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মনিরুল ইসলাম জানান, আটককৃতদের কেউ ওই শিশু নির্যাতন মামলার আসামী নয়। তারা মাদ্রাসা বন্ধ করে দেয়ায় মামলার বাদির সাথে তাদের গন্ডগোল হচ্ছিল। খবর পেয়ে এসআই শিখা সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে থানায় নিয়ে আসে। মামলার পলাতক আসামীদের খোজ জানার জন্য তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

About the Author

-

%d bloggers like this: