Published On: Thu, Nov 16th, 2017

গৌরনদীতে যুবলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ / ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার

Share This
Tags

গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদতাঃ
অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গতকাল বুধবার ভোররাতে (মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে) বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়নের বেজহার গ্রামে একটি মৎস্য ঘেরের মালিক ও মাহিলাড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য মো. নাজমুল হোসেন (৩৬)কে কুপিয়ে জখম ও গুলিবিদ্ধ করেছে প্রতিপক্ষরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে(নাজমুল সরদারকে) বরিশাল নগরীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুই রাউ- গুলি উদ্ধার করেছে। গুলিবিদ্ধ নাজমুল সরদার মাহিলাড়া ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক সৈকত গুহ পিকলুর ওপর হামলার অন্যতম আসামি।
যুবলীগ নেতা মো. নাজমুল হোসেন(৩৬) অভিযোগ করে বলেন, মাহিলাড়া ইউনিয়নের বেজহার এলাকায় (মহিষার বিল) নিজের মৎস্য ঘেরে মঙ্গলবার দিবাগত রাত আনুমানিক ৩টার দিকে মাহিলাড়া ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক সৈকত গুহ পিকলু, তার সহোদর যুবলীগের সদস্য সলিল গুহ পিন্টু, মাহিলাড়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন কবিরাজের ভাতিজা ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা পলাশ কবিরাজ (৩২) যুবলীগ কর্মী শিপন সরদার (৩০)সহ ৫/৬ জন সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র, পিস্তল ও লোহার রড নিয়ে আমার উপর হামলা চালায়। আমাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এক পর্যায়ে আমার ডান পায়ের উরুতে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে সন্ত্রাসীরা। তার পা ও কানে গুলি লেগেছে বলে দাবী করেন নাজমুল।
নাজমুলের কর্মচারী জবেদ খলিফা ওরফে রসুল খলিফা বলেন, গুলির শব্দ শুনে এগিয়ে এসে মালিক নাজমুলকে রক্ষায় চেষ্টা করি। এসময় হামলাকারীরা আমাকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। আমি ডাক চিৎকার দিয়ে আশপাশের লোকজন জড়ো করতে চেষ্টা করলে চেয়ারম্যান পিকলসহ হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে রাত পোনে ৫টার দিকে বরিশাল নগরীর বেসরকারী রাহাত আনোয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
গৌরনদী মডেল থানার এসআই সগীর হোসেন জানান, তিনি বরিশাল নগরীর বেসরকারী ক্লিনিক রাহাত আনোয়ারে গিয়ে সেখানে ভর্তি নাজমুলের সাথে কথা বলেছেন। আহত নামজুল দাবি করেছে তাকে গুলি করা হয়েছে। তার পায়ে এবং কানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। চিকিৎসক ডাঃ আনোয়ার হোসেন অবশ্য এখন পর্যন্ত রোগীর অবস্থা সম্পর্কে মতামত দেননি।
বরিশাল নগরীর বেসকারী রাহাত আনোয়ার হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, রোগী নাজমুলের কানে ও মাথায় রক্তাক্ত জখম রয়েছে এছাড়া ডান পায়ের উরুতে ক্ষত রয়েছে। তার অবস্থা গুরুতর।
অভিযোগের ব্যাপারে জানতে মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু’র মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
গৌরনদী মডেল থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, এখনো কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। মৌখিকভাবে শুনে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে দুই রাউ- তাজা গুলি ও একটি গুলির সম্মুখ ভাগ উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।
জানা গেছে, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মাহিলাড়া ইউনিয়ন আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সহকারী কমা-ার (সাংগঠনিক) আনোয়ার হোসেন রাঢ়ীর সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈকত গুহের বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধকে কেন্দ্র সোমবার রাতে আ’লীগ নেতা আনোয়ার রাঢীর সমর্থকরা মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সৈকত গুহ পিকলুর ওপর হামলা চালিয়ে তাকে আহত করে। ওই ঘটনার জের ধরে নাজমুলের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে পিকলুর প্রতিপক্ষরা দাবী করেন।

About the Author

-

%d bloggers like this: