Published On: Mon, Nov 13th, 2017

এ্যানেসথেশিয়ার চিকিৎসক সংকটে ৩০ বছর ধরে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি অপারেশন থিয়েটার চালু হয়নি

Share This
Tags

গৌরনদী বরিশাল
৫০ শয্যায় বিশিষ্ট বরিশালের গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের অভাবে গত ৩০ বছরেও ২টি অপারেশন থিয়েটার চালু হয়নি। ফলে ওটি’র যন্ত্রপাতি নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এখানে চিকিৎসক সংকট, কর্মচারী স্বল্পতা, ঔষধপত্রের অপ্রতুলতা, এক্স-রে মেশিন বিকল থাকার কারণে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিনিয়ত আসা শত শত রোগী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে রোগীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
সরে-জমিনে ডাক্তার ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাগেছে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জুনিয়ার কনসালটেন্টের (বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের) ১০টি পদসহ মোট ২১টি পদ থাকলেও মাত্র ৯ জন চিকিৎসক রয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে বিশেষজ্ঞ বিকিৎসকের ৭টি পদসহ ১২টি চিকিৎসকের পদ শুন্য রয়েছে। ডাক্তারের শুণ্য পদের মধ্যে রয়েছে- জুনিয়ার কনসালটেন্ট (সার্জরী), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (মেডিসিন), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (চক্ষু), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (ইএনটি), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (এ্যানেসথেসিয়া), জুনিয়ার কনসালটেন্ট (চর্ম/যৌন), সহকারী সার্জন এ্যানেসথেসিয়াসহ ১২টি চিকিৎকের পদ। এখানে ২৬টি নার্সের পদ থাকলেও আছে ২২ জন নার্স, তৃতীয় শ্রেনীর ২৯ টি পদের মধ্যে আছে ২২ জন। ৪র্থ শ্রেনীর ২৬টি পদের মধ্যে কর্মরত রয়েছেন ১৬ জন। ৬ জন সুইপারের মধ্যে আছে মাত্র ২ জন। বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারসহ বিভিন্ন পদে সবমিলে ৩৭টি পদ শুন্য রয়েছে। এ ছাড়া গত ২ বছর ধরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক্স-রে মেশিনটি বিকল অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এ সব সমস্যার কারণে এখানে রোগীরা চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেনা। তারা নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এ সমস্যা দীর্ঘদিনের হলেও সমাধানের উদ্যোগ নিচ্ছেনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তাই জনমনে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৮৭ সালে ৩১ শয্যা বিশিষ্ট গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের আশোকাঠি বাসস্ট্যান্ডের কাছে প্রতিষ্ঠিত হয়। চিকিৎসক সংকটের কারণে গৌরনদী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার এবং পাশ্ববর্তী কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ ও পশ্চিমাংশ, উজিরপুর উপজেলার উত্তরাংশ, বাবুগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমাংশ, আগৈলঝাড়া উপজেলার পূর্বাংশ ও মুলাদী উপজেলার পশ্চিমাংশের অন্তত ৬ লক্ষাধিক জনগণ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১টি অপারেশন থিয়েটার খোলা হয়। গত ২০০৫ সালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি সম্প্রসারন করে দোতলা করা হয় এবং একইসাথে এটি ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। ওই সময় নতুন ভবনের দোতলার একটি কক্ষকে ওটি হিসেবে ব্যবহারের জন্য আধুনিক যন্ত্রপাতি ও চিকিৎসা সরঞ্জামাদি দিয়ে সুসজ্জিত করা হয়। বর্তমানে নতুন ভবনের দোতলায় ১টি ও পুরানো ভবনের নিচতলায় ১টি অপারেশন থিয়েটায় রয়েছে। কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার হ্েচ্ছ শুধূমাত্র জুনিয়ার কনসালটেন্ট (এ্যানেসথেসিয়া) ও সহকারী সার্জন (এ্যানেসথেসিয়া) ডাক্তার না থাকায় ওটি ২টি চালু হচ্ছেনা। এ্যানেসথেসিয়া ডাক্তারের অভাবে গত ৩০ বছর ধরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওটি ২টি বন্ধ রয়েছে। গত ৬ মাস পূর্বে এখানে জুনিয়ার কনসালটেন্ট (গাইনী) চিকিৎসক পোস্টিং দেয়া হলেও অজ্ঞাত কারণে অপারেশন থিয়েটার ২টি এখনও চালু হয়নি। এখানে কর্মরত গাইনী ডাক্তার সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা রোগীদের অপারেশন না করে বাহিরের ২/৩টি ক্লিনিকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সিজারিয়ান অপারেশনসহ বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রোপচার করে আসছেন। কবে নাগাদ অপারেশন থিয়েটার ২টি চালু করা সম্ভব হবে তারও নিশ্চয়তা দিতে পারছেনা কেউ। এ দিকে কয়েক বছর ধরে ওটি ২টি চালু না হওয়ায় লাখ লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন মেশিনপত্র ও চিকিৎসা সরঞ্জামাদি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওটি বন্ধ থাকার কারণে সামান্য অপারেশনের জন্য এলাকার গরীব/ হতদরিদ্র লোকজন নিরুপায় হয়ে স্থানীয় ক্লিনিকে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। অপরদিকে, এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়ার কনসালটেন্ট (অর্থপেডিকস) পদের চিকিৎসক ডেপুটেশনে বলিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছেন। জুনিয়ার কনসালটেন্ট (এ্যানেসথেসিয়া) পদের বিপরীতে মেডিকেল অফিসার ডাঃ মো. মনিরুজ্জামানকে পোস্টিং দিয়ে রাখা হয়েছে।
গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ এসএম কবির হাসান বলেন, ‘এ্যানেসথেশিয়ার ডাক্তার না থাকার কারণে ওটি চালু করা যাচ্ছে না। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওটি ২টির একটিতেও ডায়াথামী মেশিন ও ওটির লাইট নেই। এছাড়া ২টি ওটির দরজা জানালা ভাঙ্গা। তবে অন্তত একটি ডায়াথামী মেশিন ক্রয়সহ অন্যান্য সমস্যা সমাধান করা হলে অতিদ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটার চালু করা সম্ভব হবে। তীব্র চিকিৎসক সংকটের কারণে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে’।

About the Author

-

%d bloggers like this: