গৌরনদীতে ফলেছে ক্যান্সার প্রতিরোধী সাইট্রিফেলিয়া (ননি ফল) ফল

Share This
Tags


বিডি কামাল ও মুন্সি রুবেল হোসেন।
বরিশালর গৌরনদী উপজেলার কসবা গ্রামের শিক্ষিত যুবক মোঃ হাবিব সরদার। সম্যক জ্ঞান রাখেন প্রকৃতি ও পরিবেশের উপর। সে ভালোলাগা থেকেই বাড়ির আঙ্গিনায় ১০ শতক জমিতে গরে তুলেছেন দুর্লভ ঔষধি গাছের বাগান। আর সে বাগানেই এ বছর প্রথম ফলন এসেছে দুর্লভ ঔষধি সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফল। প্রকৃতির এই সুপার ফুড ক্যান্সার প্রতিরোধকসহ মানবদেহের জন্য অত্যান্ত গুরত্বপূর্ন একটি ফল। ফলটি বানিজ্যিক চাষে ব্যাপক প্রস্ততিও নিয়েছেন তিনি। এছাড়াও তার বাগানে ১৭ প্রজাতির দুর্লভ ভেষজের গাছ রয়েছে। তবে সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফল নিয়েইে তার সফল হওয়ার সপ্ন।
সাইট্রিফেলিয়া কি : বৈজ্ঞানিক নাম মরিন্ডা সাইট্রিফেলিয়া। আমাদের দেশে এবং ভারতে ননিফল নামে পরিচিত। এ ফলের রসে আছে ভিটামিন এ,সি,ই,বি,বি ২,বি ৬,বি ১২, ক্যালসিয়াম, আয়রন, নিয়াসিন, ফলিক অ্যাসিড, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, ফসফরাস, ম্যাগ্নেসিয়াম, জিঙ্ক, কপার এবং অন্যান্য মিনারেলস যেমন ক্রোমনিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, মলিবডেনাম, সোডিয়াম, পটাসিয়াম, কার্বোহাইড্রেটসহ প্রায় ১৫০টির মত পুষ্টিগুণ। এ ফলের জুস নিয়মিত সেবনে ক্যান্সার ও টিউমার বৃদ্ধিকেও দমন করে। ননি ফল যাহা দু’হাজারেরও বেশী বছর ধরে প্রাচীন পলিনিশিয়া, চিন, এশিয়া, অষ্ট্রেলিয়া, ভারতের আদিবাসীদের মধ্যে অসাধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ঔষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বর্তমান এ আধুনিকতার যুগেও প্রচুর ঔষধীগুণ সম্পন্ন এই ফলের রস মানব শরীরের বিভিন্ন ধরণের উন্নতির প্রমাণ দেখিয়েছে।

পুষ্টিবীদ ইলিয়াস বিন শওকত জানান সারা বিশ্বে বর্তমানে ৩০টির বেশী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফল নিয়ে গবেষণা চলছে। আমাদের দেশে মালয়েশিয়ান একটি কম্পানির মরিনঝি নামে (ননি ফলের) জুস পাওয়া যায় এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। তিনি আরো জানান হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবীন গবেষক ড. রালফ এম হেনেইনিকের মতে ননি ফলের রসে প্রাাকৃতিক এ্যালকালয়েড জেরোনিনের পাশাপাশি এক ধরণের রাসায়নিক উপাদান রয়েছে যা, বিপাকতন্ত্রে জেরোনিনে রুপান্তরিত হয়,একটি পরিপক্ষ সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফলের রসে এসব গুণ বিদ্যমান।এ ফলের রসে উচ্চ রক্তচাপ কমায়, শারীরিক শক্তি বৃদ্ধি করে, প্রদাহ ও হিষ্টামিন প্রতিরোধী, ব্যাথা ও জ্বালা কমায়, এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টি যা পরিপাক প্রণালী ও হৃদ ক্ষত প্রতিরোধ করে এবং ক্যান্সার টিউমার বৃদ্ধিকে দমন করে। ননি ফলের রস ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে, উচ্চ রক্তচাপে বিশেষ উপকারি ননি ফলের রসে রয়েছে ফাইটোনিয়েন্টস খাদ্যযাত উপশমকারী বৈশিষ্ট্য যে কারণে রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে এবং স্কপলেটিন ফাইটোনিউট্রেয়েন্ট উপাদান পূর্বে সঙ্কুচিত রক্তনালীকে সচল করে। এ ফলের রসকে কোন কৃত্রিম সংরক্ষন ছাড়াই দির্ঘদিন ব্যবহার করা যায়।

আইয়রুর্বেদ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমান জানান সাম্প্রতিক এক সমিক্ষায় দেখা গেছে, যে ইনোসিটলে পুর্বাভাষকারী কোষের কার্যক্রম ডিপ্রেশনের চিকিৎসা হিসেবে উপকারী ভূমিকা রাখে। ইনোসিটল এক ধরণের প্রাাকৃতিক শক্ররা সুরাসর/এলকোহল যা ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণে নিশ্চিত ভূমিকা রাখে। বিশ্বয়কর এ ফলের গুণ অনেক। আমাদের দেশের অনেক হাবর্স কোম্পানী বিভিন্ন নামে সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফলের পন্য বাজারজাত করছেন। আমাদের দেশে এর বানিজ্যিক আবাদ শুরু হয়নি তবে কোন কোন হার্বস কোম্পানী নিজেদের চাহিদা মেটানোর জন্য সল্প পরিসরে বাগান করছেন। এর কাঁচামাল ভারত এবং মালয়েশিয়া থেকে আমাদের দেশে উচ্চ মুল্যে আমদানী করা হয়। আমাদের দেশে এর বানিজ্যিক সম্ভাবনা রয়েছে।
সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফলের সফল চাষী হাবিব সরদার জানান পাঁচ বছর আগে তিনি এ ফলের গুনাগুনের কথা শুনে মুগ্ধ হন এবং চেষ্টা চালাতে থাকেন এর চাষ করার। সে সুবাদে তিনি মালয়েশিয়া থেকে তার এক আত্মীয়র মাধ্যমে পাকা ফল সংগ্রহ করেন। এবং এর থেকে ৪৭ টি চারা তৈরি করে রোপন করেন। বিভিন্ন কারনে কয়েকটি চারা নষ্ট হয়ে যায়। বর্তমানে ২৩ টি গাছ আছে। চারা রোপনের সারে তিন বছরের মাথায় এবার প্রঘম সব গাছে ফল ধরেছে। একটি হারবাল কোম্পানীর সাথে খথা হয়েছে সব ফল তারা আমার এখান থেকে প্রসেসিং করে নিবেন। এবং ফলের বিচি আমি রেখে দেব । এ বছর আমি পাঁচশ গাছ দিয়ে বাগান করার মত প্লট তেরি করছি। বানিজ্যিক চাষ করব ইনশাআল্লাহ। তিনি আরো জানান একটি অর্থকরী কৃষি পণ্য সাইট্রিফেলিয়া বা ননি ফল। অবাক করার মতো বহুমূখি ব্যবহারযোগ্য এ ফলটি। আমাদের দেশের আবহাওয়ায় পরিকল্পিত চাষ করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব।

About the Author

-

%d bloggers like this: