গৌরনদীতে ৫৬ অসহায় পরিবার পেল নাঈম স্মৃতি ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার

Share This
Tags
মো.রবিউল হোসেন।
সমাজের অসঙ্গতির বিরুদ্ধে অবস্থান ওদের। মাদক  বিরুদ্ধে ওরা সোচ্চার।
শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে ওরা কাজ করে চলেছেন  কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে। অসহায়
মানুষের পাশে দাঁড়াতে ওরা ঐক্যবদ্ধ। করোনা সংকটেও বসে নেই।
বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে নাঈম স্মৃতি ফাউন্ডেশনের
সদস্যরা  করোনা সংকটে থাকা অসহায় মানুষের পাশে থেকেছেন শুরু থেকেই।

গ্রামের মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করাসহ নানাভাবে কাজ করে চলেছেন এ
প্রতিষ্ঠানের  সদস্যরা। ধারাবাহিক কর্মকান্ডের  অংশ হিসেবে ঈদকে উপলক্ষ
করে তারা ৫৬ গরিব  পরিবারের মাঝে পৌঁছে দিয়েছেন ‘ঈদ উপহার’। দরিদ্র
পরিবারকে খুঁজে বের করে এ
উপহার বিতরণ করেন তারা।
উত্তর পালরদী গ্রামের অশীতিপর বৃদ্ধা রিজিয়া বেগম ঈদ উপহার পেয়ে বেশ
খুশি। বলেন, ‘যাদের আসার কথা তারা তো আসে না। গ্রামের পোলাপানরা আমার
বাড়ি আইয়া ঈদের উপহার দিয়ে গেল আমি খুশি হইছি।’
উত্তর বিজয়পুর গ্রামর হতদরিদ্র অসহায় পরিবার আবেদ আলী সরদার
বলেন,পোলাপানের এ কাজটি ভালো হয়েছে। ঈদ উপহারে অনেক পেয়েছি ওরা অনেক কিছু
দিয়েছে। আমার পরিবারে ওদের উপহার আনন্দ দিচ্ছে। আমরা দোয়া করি ওরা যেন সব
সময় অসহায় মানুষের পাশে এ ভাবে দাড়াতে পারে।
২০১০ সালে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার উত্তর পালরদী  গ্রামের কয়েকজন কিশোর ও
যুবক মিলে এ সংঘঠনের যাত্রা শুরু করে। দরিদ্র শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরন
বিতরন। বৃক্ষরোপন করাসহ বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম শুরু করেন।
২০১৬ সাল থেকে এ সংঘঠনটি ব্যাপক সমাজ সেবার কাজ শুরু করে। মহামারি করোনার
শুর থেকেই তারা গুরত্বপূর্ন ভুমিকা রেখে আসছে। সর্বশেষ ঈদুল ফিতরে অসহায়
পরিবার গুলোর মাঝে ঈদ উপহার দিয়ে পরিবারগুলোর মাঝে হাসি ফুটিয়েছেন।
এলাকার সচেতনমহল তাদের কার্যক্রমের প্রসংশা করেছেন।
এলাকার কিশোর যুবকদেও নিয়ে গড়ে তোলা হয় নাঈসম স্বৃতি ফাউন্ডেশন। এ
প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে নানা সামাজিক কর্মকন্ড পরিচালনা করা হয়। দাতা ও
সাধারন সদস্যদের আর্থিক সাহায্যে চলে এ সংগঠন এর কার্যক্রম।
প্রতিষ্ঠানটির সাধারন সম্পাদক সানবিম শোয়েব বলেন ‘আমরা ব্যতিক্রম সমাজ
বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের এ অরাজনৈতিক সংঘঠনের কার্যক্রম চলমান
থাকবে।
প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবদুল্লাহ আল নোমান জানান , ‘শিক্ষার
আলো ছড়িয়ে দিতে এবং অসহায় মানুষের মূখে হাসি ফোটাতে আমরা কাজ করছি।
তাছারা যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগেও আমরা সেচ্ছসেবী হিসেবে কাজ করছি।
পরিবেশের সুরক্ষায় বৃক্ষরোপন, অসহায় শিক্ষার্থীদের পোষাক,শিক্ষা উপকরন
বিতরনসহ মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা,অসহায় ও দুস্থ মানুষের সেবা
করাই আমাদের এ সংঘঠনের এক মাত্র লক্ষ। । সে লক্ষ্য নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি
আমরা কাজ করে চলেছি। আমরা ঈদের শুভেচ্ছার সাথে সাথে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি
তাদের প্রতি যারা আমাদেরকে সাহায্য করে উৎসাহ দিয়েছেন।

About the Author

-

%d bloggers like this: