Published On: Tue, Oct 8th, 2019

হিজলায় যুবককে নির্যাতনের পর মলমুত্র খাওয়ানো ঘটনায় সেচ্ছাসেবকলীগনেতাসহ গ্রেফতার -২

Share This
Tags

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, বরিশাল

ঝাড় ফুক দেয়ার অপবাদ দিয়ে আজম বেপারী (২৫) নামের এক তেল ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্যে হাত ও পা বেঁধে রাস্তার ফেলে অমানুষিক নির্যাতনের পর মুখে মলমুত্র ঢেলে দিয়েছে স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি। সোমবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যা নিয়ে প্রশাসন থেকে শুরু করে এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনাটি জেলার হিজলা উপজেলার হরিনাথপুর এলাকার।
ভাইরাল হওয়া ভিডিও’র সূত্রধরে মঙ্গলবার দুপুরে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। হিজলা থানার ওসি অসীম কুমার সিকদার জানান, গ্রেফতারকৃতরা হলো উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নের টুমচর গ্রামের বাসিন্দা শরিফ মাতুব্বরের পুত্র আব্দুর রশিদ ও একই এলাকার বাসিন্দা কবির। এদেরমধ্যে আব্দুর রশিদ ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি। আত্মগোপনে থাকা ঘটনার মূলহোতা মাহাবুব সিকদারসহ অন্যান্যদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
এক মিনিট ১৪ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটিতে দেখা গেছে, হরিনাথপুর বাজার সংলগ্ন টুমচরের বাসিন্দা মহিউদ্দিন বেপারীর পুত্র ও হরিনাথপুর লঞ্চ ঘাটের জ্বালানী তেল ব্যবসায়ী আজম বেপারীকে পেছন থেকে হাত ও পা বেঁধে ইটের রাস্তার ওপর ফেলে এক ব্যক্তি তার বুকের ওপর পাড়া দিয়ে জোরকরে মলমুত্র খাওয়াচ্ছে। হরিনাথপুর তালতলা জামে মসজিদ রোড নামকস্থানে ওই ঘটনায় আজম বেপারী অনেক চেষ্টা করেও স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তির হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারেননি।
খোঁজ নিয়ে আজম বেপারীকে যারা নির্যাতন করেছে তাদের মধ্যে একজনের পরিচয় জানা গেছে। তিনি হলেন-একই এলাকার বাসিন্দা আব্দুল খালেক সিকদারের পুত্র ও হরিনাথপুর লঞ্চ ঘাটের সুপারভাইজার মাহবুব সিকদার। তার নেতৃত্বে আজম বেপারীকে নির্যাতন করে মলমুত্র খাওয়ানো হয়েছে। আজম বেপারীর পরিবারের দাবি ঘটনার পর থেকেই তার (আজম) খোঁজ পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে নির্যাতনকারী প্রভাবশালীদের ভয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি আজমের পরিবারের সদস্যরা।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, নির্যাতনের পর আজম বেপারীর হাত ও পা পিছন থেকে বেঁধে ইটের রাস্তার ওপর সুয়িয়ে রাখা হয়েছে। তার চারদিক ঘিরে দাঁড়িয়ে আছে ৭/৮ জন লোক। এরমধ্যে একজন আজমের বুকের ওপর পা দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়া অপর একজন লোক আজমের পা এবং একজনে তার মাথা মাটির সাথে চেঁপে ধরে আছে। একটু পরেই বুকের ওপর পা দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তি বিশেষপাত্রে মলমুত্র নিয়ে তা জোর করে আজমের মুখে ঢালার চেষ্টা করছে। তখন আজম অনেক অনুনয় বিনয় এবং ধস্তা ধস্তি করেও তাদের থেকে নিজেক রক্ষা করতে পারেননি। এসময় পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তিরা ঘটনাটি দেখলেও কেউ প্রতিরোধে এগিয়ে আসেনি। আর পুরো ঘটনাটি পাশ থেকে দাঁড়িয়ে দেখছে। এরমধ্যে একজন মোবাইল ফোনে পুরো ঘটনার ভিডিও ধারন করেছে।
স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঝাড় ও ফুকের কাজ করার অপবাদ দিয়ে আজম বেপারীকে নির্যাতন করেছে মাহবুব সিকদার ও তার সহযোগিরা। সূত্রে আরও জানা গেছে, খবর পেয়ে হরিনাথপুর শাওড়া সৈয়দখালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই তারেক আহসান রাসেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও রহস্যজনক কারনে তিনি পুরো ঘটনাটি এড়িয়ে যান। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ফাঁড়ির ইনচার্জ বলেন-এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি জানেন না। পরে অবশ্য বলেন, আমি সোমবার রাতে ঘটনাটি শুনেছি। তবে ভিডিও ভাইরালের বিষয়টি আমার জানা নেই।
অভিযোগের ব্যাপারে মোবাইল ফোনে নিজের ভুল স্বীকার করে ঘটনার মুলহোতা ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য মাহবুব সিকদার বলেন, আজম বেপারী ঝাড় ও ফুক দিয়ে গ্রামের সহজ সরল মেয়ে এবং বউদের সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড করে। সস্প্রতি সে স্থানীয় জহির খানের স্ত্রী পারভীন বেগম ও তার মেয়ের সাথে অবৈধ সম্পর্ক করে। এমনকি পারভীনকে নিয়ে পালিয়ে যায়। কিছুদিন পরে তারা পুনরায় এলাকায় ফিরে আসে। এতে গ্রামবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে আজম বেপারীকে মারধর করে মুখে মলমুত্র ঢেলে দিয়েছে।
এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি তিনি জেনেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। ঘটনার সাথে সকল অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

About the Author

-

%d bloggers like this: