বিশেষ অতিথি বলে কথা। যে-সে অতিথি নয়, অন্য দেশের প্রধানমন্ত্রী। তাঁর সঙ্গে ছবি তোলা হবে। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর বসার জন্য বেশ সুন্দর একটি সোফার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু সেই সোফায় বসলেন না তিনি। জানালেন, আলাদা সোফায় নয়, সকলের সঙ্গে একই চেয়ারে বসেই ছবি তুলবেন তিনি। রাশিয়া সফরে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই সোফায় না বসতে চাওয়ার ঘটনাটির একটি ভিডিও তুলে পোস্ট করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ভিডিওটি-তে দেখা যাচ্ছে, মোদীকে নিয়ে যাওয়া হল সোফায় বসানোর জন্য, কিন্তু তিনি বসতে চাইলেন না। তাঁর কথা  শুনে, সেখান থেকে সরিয়ে ফেলা হল সোফাটিকে। বাড়িয়ে দেওয়া হল সাধারণ একটি চেয়ার, যে চেয়ারে অন্য অতিথিরা বসেছেন। ফোটো সেশন করার সময়ে সেই চেয়ারেই বসেন মোদী।

এই ভিডিওটি নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে বৃহস্পতিবার শেয়ার করেন বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল-ও। তিনি লেখেন, “নরেন্দ্র মোদীজির সাধারণ মানসিকতা দেখার সুযোগ হল। রাশিয়ার অভ্যাগতদের সঙ্গে একই রকম চেয়ারে বসবেন বলে, তাঁর জন্য রাখা আলাদা সোফা সরিয়ে দেওয়ার আর্জি জানান তিনি।”

বুধবারই দু’দিনের সফরে রাশিয়া পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রাশিয়ার ভ্লাদিভস্তক বিমানবন্দরে মোদীর বিমান অবতরণ করলে তাঁকে গার্ড অফ অনার দেওয়া হয়। তাঁর সঙ্গে হাত মিলিয়ে এবং তাঁকে আলঙ্গিন করে স্বাগত জানান রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর পরেই পরিকল্পনামাফিক ভেজদা জাহাজ নির্মাণ কমপ্লেক্সের উদ্দেশে রওনা দেন মোদী-পুতিন। বড় শিল্পের ক্ষেত্রে ভারত ও রাশিয়ার বাণিজ্যিক সম্পর্ক দৃঢ় করাই ছিল এই সফরের উদ্দেশ্য। বুধবার পুতিনের সঙ্গে রাশিয়ার জাহাজ নির্মাণ শিল্পের নির্মীয়মাণ কমপ্লেক্স ঘুরে দেখেন মোদী।

পরে জানানো হয়, রাশিয়ার সর্বোচ্চ নাগরিকের সম্মানও দেওয়া হবে নরেন্দ্র মোদীকে। এ ঘোষণায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মোদী। তিনি বলেন, “রাশিয়ার জনগণের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। এই সম্মান দুই দেশের বন্ধুত্বের প্রতীক। এই সম্মান ১৩০ কোটি ভারতীর।”