Published On: Mon, Aug 5th, 2019

স্কুলে বিশ্ব বন্ধু দিবস পালন শিক্ষার্থীদের রুমে আটকে মারধরের অভিযোগ

Share This
Tags

স্কুলে বিশ্ব বন্ধু দিবস পালন শিক্ষার্থীদের রুমে আটকে মারধরের অভিযোগ
আগৈলঝাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি
আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস পালন পালন করায় শিক্ষকদের রোষানলে পরে স্কুলের একটি কক্ষে ছাত্রীদের আটক করে অমানবিক মারধরের অভিযোগ উঠেছে আগৈলঝাড়ার শ্রীমতি মাতৃ মঙ্গল বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে। শিক্ষকদের অমানবিক মারধরে আহত হওয়া পাঁচ শিক্ষার্থী সোমবার স্কুলে ক্লাশ করতে পারেনি। এ ঘটনায় ওই স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।
আহত শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা জানায়, উপজেলা সদরের ওই বিদ্যালয়ের নবম ও দশম শ্রেণির ছাত্রী মেঘলা দাস, সাম্মী আক্তার, পূজা অধিকারী, তিথী মধু, যুথী আক্তার, মৌ আক্তার, বর্ষা অধিকারী, অপির্তা বাড়ৈ,হাপসা হক তন্বী, প্রিয়াংকা বল্লভ, শাম্মি আক্তার, সৌমিসহ অর্ধশতাধিক ছাত্রীরা আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবসের দিন রোববার দুপুরে স্কুল বিরতিরর সময় আনন্দ উল্লাসের মাধ্যমে ক্লাশ রুমে দিবসটি পালন করে।
এ ঘটনায় স্কুলের শিক্ষকেরা ক্ষুব্ধ হলে তাদের রোষানলের কারণে ওই ছাত্রীদের শ্রেণিকক্ষে দেড় ঘন্টা আটকে রাখে। এতেও শিক্ষকেরা ক্ষ্যান্ত না হয়ে দুই ক্লাশের ছাত্রীদের সবাইকে লাইব্রেরীতে ডেকে পাঠান সহকারী প্রধান শিক্ষক নির্মলেন্দু বাড়ৈ। ছাত্রীরা লাইব্রেরীতে আসলে প্রধান মিক্ষকের উপস্থিতিতে বেত দিয়ে ছাত্রীদের এলোপাথারী পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন তিনি। পরে প্রধান শিক্ষক মো. হারুন-অর-রশিদ তাৎক্ষনিক ছাত্রীদের অভিভাবকদের বিদ্যালয়ে ডেকে আনেন।
শিক্ষকেরা অভিভাবদের কাছে ছাত্রীদের টিসি দেয়ার হুমকি দেয়ায় ছাত্রীরা শিক্ষকদের পা ধরে ক্ষমা চেয়ে ঘন্টা খানেক কান্নাকাটি করায় মন গলে শিক্ষকদের।
বেত্রাঘাতে গুরুতর আহত হওয়ায় মেঘলা, বর্ষা, হাফসা, প্রিয়াংকা ও তন্বীসহ ৫জন ছাত্রী সোমবার স্কুলে আসতে পারেনি বলে বলে তাদের অভিভাবকেরা জানান।
অভিযুক্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক নির্মলেন্দু বাড়ৈ ছাত্রীদের মারধরের কথা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, তিনি প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে ছাত্রীদের বেত্রাঘাত করেছেন।
প্রধান শিক্ষক হারু-অর-রশিদ সাংবাদিকদের জানান, নবম ও দশম শ্রেণির কিছু ছাত্রী উশৃংখল হওয়ায় বিদ্যালয়ের স্বার্থে তাদের সামান্য বিচার করা হয়েছে।
বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস বলেন, বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে ক্লাশের বিঘœ করে বিশ্ব বন্ধু দিবস পালন করলে সেটি অপরাধ। তবে বিদ্যালয় বিরতির সময় বন্ধু দিবস পালন করলে সেটি দোষের কিছু নয়। প্রতিকি ছবি।

About the Author

-

%d bloggers like this: