কাশ্মীরে আতঙ্ক, খাবার-জ্বালানির মজুদ বাড়াচ্ছে আমজনতা

Share This
Tags

কাশ্মীরে আতঙ্ক, খাবার-জ্বালানির মজুদ বাড়াচ্ছে আমজনতা
পরিকল্পিতভাবে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে মোদি সরকার -গুলাম নবী * এত ভয়ে ভয়ে থাকতে আগে কখনও দেখিনি- মেহবুবা মুফতি
পুরো কাশ্মীরেই এখন আতঙ্ক। ভয়ে ভয়ে দিন কাটছে ভারত অধিকৃত এ উপত্যকার আমজনতার। হঠাৎ কখন কী হয়, তারই প্রস্তুতি এখন গোটা অঞ্চলে। জঙ্গি নিধনে ঘরে ঘরে সেনা অভিযান, মোড়ে মোড়ে সেনা-পুলিশ-সিআরপিএফের কড়া পাহারা, ১৪৪ ধারা, চৌকিতে চৌকিতে যানবাহন তল্লাশি, নাগরিকদের আইড কার্ড পরীক্ষা, রাতভর সেনা-পুলিশের টহল- সবমিলিয়ে হাট-বাজার-মসজিদ সবখানেই চাপা আতঙ্ক। ভূ-স্বর্গখ্যাত কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার স্থানীয় কংগ্রেস নেতা গুলাম নবী বলেন, ‘গত ৩০ বছরে কাশ্মীরে এমন হাল হয়নি। পরিকল্পিতভাবে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে মোদি সরকার।’ কী হচ্ছে বা কী হবে, সংবিধানের ৩৫ ধারি জারি নাকি বড় কোনো জঙ্গি হামলা মোকবেলার প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রশাসন- তারও আন্দাজ করতে পারছে না জনতা। তবে কিছু একটা যে ঘটতে চলেছে তা নিশ্চিত। সেই ভয়েই নিজেদের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন জম্মু ও কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ। মুদিখানার জিনিসপত্র থেকে শুরু করে খাদ্যপণ্য, জ্বালানি সবই ঘরে মজুদ রাখছেন তারা। নিত্যপ্রয়োজনীয় কোনো জিনিস যেন বাদ না থেকে যায় সেদিকে কড়া নজর রয়েছে গৃহকর্তা এবং কর্ত্রীদের। চাল-ডাল, চিনি-লবণ, মাংসের বাজার থেকে কাঁচাবাজার সবখানেই লাইন। লম্বা লাইন লেগেছে এটিএম বুথের বাইরেও। যাই হোক না কেন, টাকার বন্দোবস্ত তো রাখতেই হবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় ওষুধও বেশি করে কিনে রাখছে স্থানীয়রা। শ্রীনগরের এক বড় ফার্মেসির লম্বা লাইন থেকে রমিজ খান নামের এক স্থানীয় বলেন, আমার বাবার কিছু জরুরি ওষুধের মজুদ বাড়াতেই সকাল থেকে এই লাইনে দাঁড়িয়েছি। আমার মতো অনেকেই এই লাইনে আছেন যারা শুধু বাড়তি ওষুধ কেনার জন্যই এখানে অপেক্ষা করছেন। ব্রাইটার কাশ্মীর, এনডিটিভি, দ্য এশিয়ান এজ।
কিছুদিন পরপরই কাশ্মীরে সেনা বাড়াচ্ছে মোদি সরকার। বিশেষ করে দ্বিতীয় মেয়াদে ফের সরকার গঠন ও বিজেপির দ্বিতীয় কাণ্ডারী অমিত শাহ স্বরাষ্ট্র দফতরে বসার পর থেকেই কাশ্মীরে গাড়ি-গাড়ি সেনা-পুলিশ পাঠাচ্ছে দিল্লি। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সফরের পরেই ২৫ জুলাই জম্মু ও কাশ্মীরে মোতায়েন হয়েছে ১০০ কোম্পানি অর্থাৎ প্রায় ১০ হাজার অতিরিক্ত আধা-সামরিক বাহিনী। এরপর থেকেই জম্মু ও কাশ্মীরের সাধারণ মানুষের মাথায় ঢুকে গেছে, উপত্যকায় বড়সড় কিছু একটা হতে চলেছে। সেই ভাবনাতেই সিলমোহর বসিয়েছে শুক্রবার নতুন করে আরও ২৮০০ সেনা বাড়ানোর দল্লি-আদেশ। একই দিনে জঙ্গি হামলা হতে পারে খবর পেয়ে আচমকা অমরনাথযাত্রা বন্ধের নির্দেশ দেয় প্রশাসন। ফিরে আসতে বলে পর্যটকদেরও। এরপর থেকেই ভয় আরও বেড়েছে। কিছু একটা হচ্ছে, সেই আশঙ্কাও বেড়েছে।
টুইট করে পিডিপি নেত্রী মেহেবুবা মুফতিও লিখেছেন, ‘শ্রীনগরের রাস্তায় লোকজন ছুটে বেড়াচ্ছে। পেট্রল পাম্প, এটিএমে লাইন দিচ্ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস জোগাড় করছে। কাশ্মীরিদের এত ভয়ে ভয়ে থাকতে আগে কখনও দেখিনি।’ টুইটে প্রশ্ন তুলেছেন ওমর আবদুল্লাও। তিনি লিখেছেন, ‘পহেলগাঁও এবং গুলমার্গের হোটেল থেকে জোর করে পর্যটকদের বের করে দেয়া হচ্ছে।

About the Author

-

%d bloggers like this: