Published On: Sun, Jun 23rd, 2019

ষড়যন্ত্রর প্রতিবাদে কমলগঞ্জে ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন

Share This
Tags

 


কমলগঞ্জ প্রতিনিধি
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানোর চেষ্টার প্রতিবাদে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেন বৃন্দাবনপুর রাজদিঘীর পার বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. ফজলুর রহমান। জীবন ও জীবিকার তাগিদে রাজদিঘীর পার বাজারে দীর্ঘদিন থেকে সুনামের সাথে ছোট একটি ব্যবসা পরিচালনা করছেন ও তার সাথে কারো পূর্ব শত্রুতা বা বিরোধ নেই বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান। ২৩ জুন সকাল সাড়ে ১১টায় কমলগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির শমশেরনগরস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে ফজলুর রহমান জানান, মৌলভীবাজার-৪ আসনের ৬ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদকে হত্যার উড়োচিঠিতে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান-জামিমা স্টোর থেকে বিকাশসহ বিভিন্ন হুন্ডির মাধ্যমে লন্ডন ও আমেরিকা থেকে টাকার ব্যবস্থা হচ্ছে বলে তাঁর নাম ব্যবহার করে দেওয়া হয়েছে। তাই তিনি নির্দোষ দাবি করে এর প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন। এ নিয়ে কয়েকটি মুদ্রণ, অনলাইনসহ সোস্যাল মিডিয়াতে তাকে ও তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জড়িয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। ফজলুর রহমান আরও জানান, ওই উড়োচিটি তাঁকে ফাঁসানোর জন্য তাঁর শত্রুপক্ষ এই ষড়যন্ত্র করছে। তিনি উড়োচিঠির বিষয়ে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে তদন্তপূর্ব্বক প্রকৃত হুমকিদাতাকে খোঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত সংবাদে তাকে জড়িয়ে একটি উড়োচিঠিতে হত্যার ষড়যন্ত্রে টাকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে মর্মে আমার প্রতিষ্ঠান জামিমা স্টোর এর নাম উল্লেখ করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক। তিনি এর তীব্র নিন্দা ও জোর প্রতিবাদ জানান ও এধরনের নিকৃষ্ট কর্মকান্ডের সাথে তিনি বা তার পরিবারের কোন সম্পর্ক কখনও ছিলনা ও বর্তমানেও নেই। চিঠির ভেতরে তার নাম ব্যবহার করে একজন সংসদ সদস্যকে হত্যার হুমকি প্রদানের পর তিনি সমাজিকভাবে ও আইনগতভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থা তাকে নানাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত করছে। এতে করে তিনি ও তার পরিবার মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে। তিনি তদন্তের বিষয়ে সংস্থা গুলোকে সহযোগিতাও করছেন বলে জানান।

ফজলুর রহমান আরও বলেন, ইতিপূর্বেও ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের স্বীকার হয়েছেন। চলতি বছরের ৪ ফেব্রুƒয়ারি ষড়যন্ত্রকারীদের প্ররোচনায় পুলিশ তাকে এবং নন্দগ্রামের আবুবক্কর ও ইমরান আহমদকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন। কোন মামলা ছাড়াই তাদের গ্রেফতার করায় পুলিশকে চ্যালেঞ্জ করলে পুলিশ জানায়, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকার কদমতলী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতননের একটি মামলায় পরোয়ানা রয়েছে। মামলার বাদীর সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরে বিষয়টি ভূয়া বলে চ্যালেঞ্জ করলে পুলিশ তাদের ছেড়ে দেয়। ভূয়া মামলার এই ঘটনার চার মাস পর ষড়যন্ত্রকারীরা আবারো ফজলুর রহমানকে জড়িয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্যের নামে উড়োচিঠি প্রদান করে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক ইউপি সদস্য এনাম উল্যাহ, ফজলুর রহমান এর ছোট ভাই জগলুর রহমান, চাচাতো ভাই মাও: মবশ্বির আলী, আত্মীয় ডা: আব্দুস শহীদ সাগ্নিক প্রমুখ। উল্লেখ্য, ১৩ জুন উড়োচিঠি সংসদ সদস্যের শ্রীমঙ্গলস্থ বাসার ঠিকানায় ডাক বিভাগ থেকে পৌছে। অনুরূপ একটি চিঠি এসেছে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবরে। চিঠিতে প্রেরকের নাম সুজন মিয়া, কদমতলী সিলেট উল্লেখ করা হয়েছে। এরপর থেকে কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সব সংগঠন প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে আসছে।

About the Author

-

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

%d bloggers like this: